৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২৩শে রজব, ১৪৪২ হিজরি

অচেনা ওয়েস্ট ইন্ডিজ, চেনা বাংলাদেশ


ফটোনিউজবিডি ডেস্ক: | PhotoNewsBD

২২ জানুয়ারি, ২০২১, ৯:২৪ অপরাহ্ণ

প্রেরণা যখন জাতীয় দলের জার্সি, তখন প্রতিপক্ষ যেমন-ই হোক শতভাগ দিতেই হবে। মাঠে এক বিন্দু ছাড় দেওয়া যাবে না। মাথা উচুঁ করে খেলতে হবে। লড়াই করতে হবে শেষ বল পর্যন্ত।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এসব মনোভ্রত নিয়ে মাঠে নেমেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশের বিপক্ষে ২২ গজে এ যেন চিরঅচেনা ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ডমিঙ্গো সিরিজ শুরুর আগেই বলেছিলেন, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজ সব সময়ই চ্যাম্পিয়ন দল।’ তামিম বলেছিলেন, ‘প্রতিপক্ষকে হালকা করে নেওয়া হবে বোকামি।’

কিন্তু বাংলাদেশের সব ভাবনায় তো জল ঢেলে দিচ্ছেন ক্যারিবিয়ানরা-ই। মাঠে নুন্যতম কোনো প্রতিরোধ নেই, নেই লড়াই করার ক্ষুধা, বড় কিছু করার ইচ্ছা। প্রতিপক্ষ ডেরায় পারফর্ম করা সব সময়ই চ্যালেঞ্জিং। কিন্তু হারার আগেই হেরে যাওয়া…ভুল! এ রীতিমত আত্মসমর্পণ।

প্রথম ওয়ানডে বাংলাদেশ জিতেছিল ৭ উইকেট। শুক্রবার দ্বিতীয় ওয়ানডে বাংলাদেশের জয় ৬ উইকেটে। প্রথম ওয়ানডেতে ১২২ রান করা ওয়েস্ট ইন্ডিজ আজ করে ১৪৮ রান। তাতে বাংলাদেশের জয় পেতে নুন্যতম বেগ পেতে হয়নি। শত বল হাতে রেখে অধিনায়ক তামিমের প্রথম ওয়ানডে সিরিজ। সব মিলিয়ে বাংলাদেশের ২৬তম।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ খর্বশক্তির দলের বিপক্ষে বাংলাদেশের সাফল্যকে খাটো করে দেখা যাবে না মোটেও। এ সিরিজের আগে তাঁরা টানা ৫ ম্যাচে বাংলাদেশের কাছে হেরেছিল। সেটাও তাঁদের ডেরায়, ইংল্যান্ডে ওয়ানডে বিশ্বকাপে। সব মিলিয়ে বাংলাদেশ ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে টানা ৭ ম্যাচে অপরাজিত। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১৬ ওয়ানডে অপরাজিত থাকা বাদে বাংলাদেশ শুধুমাত্র কেনিয়ার বিপক্ষেই জিতেছে টানা ৭ ম্যাচ।

দুই ওয়ানডেতে বাংলাদেশের প্রাপ্তি ধারাবাহিকতা। তামিম ইকবাল প্রথম ওয়ানডেতে ৭ রানের জন্য ফিফটি মিস করলেও এবার ৫০ রান তুলেছেন। ইনিংস বড় করতে না পারার আক্ষেপ থাকবে। সাকিব গত ম্যাচে ১৯ রানে আটকে গেলেও এবার ম্যাচ জিতিয়ে মাঠ ছেড়েছেন ৪৩ রানে।

মোস্তাফিজের (২ উইকেট) সঙ্গে রুবেল নিয়ন্ত্রিত বোলিং করেছেন। হাসান মাহমুদ লাইন ও লেন্থ ঠিক রাখতে না পেরে ছিলেন ব্যয়বহুল। সাকিব নিজের কারিশমা দেখিয়েছেন (২ উইকেট) । প্রিয় প্রতি পক্ষের বিপক্ষে মিরাজ পেয়েছেন ক্যারিয়ার সেরা বোলিং। ২০১৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সেরা দলের বিপক্ষে ২৯ রানে ৪ উইকেট পেয়েছিলেন। আজ ৪ রান কম দিয়ে পেয়েছেন সমান উইকেট। সেদিনও ছিলেন ম্যাচসেরা। আজও তার হাতে সেরার পুরস্কার। তাই তো ম্যাচসেরার চওড়া হাসি অফস্পিনারের।

যে দল নিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে এসেছে তাদের বিপক্ষে বর্তমান বাংলাদেশ অনেকটাই একবিংশ শতাব্দীর শুরুর অস্ট্রেলিয়ার মতো। বিশেষত রিকি পন্টিংয়ে অস্ট্রেলিয়া, যারা ছিলেন অপ্রতিরোধ্য। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশও ‘অস্ট্রেলিয়া’। টানা ৭ ম্যাচ জয়, হ্যাটট্রিক সিরিজ জয় তো সেসব ইঙ্গিতই দিচ্ছে। সিরিজ জয়ের পর অতিথিদের হোয়াইটওয়াশ করতে সোমবার মাঠে নামবে বাংলাদেশ। তবে ম্যাচটিতে যে একাধিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা হবে তা বলাই যায়।