২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৩ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

কৃষ্ণসাগরে সামরিক উপস্থিতি বজায় রাখার ঘোষণা ন্যাটোর


ফটোনিউজবিডি ডেস্ক: | PhotoNewsBD

১ জুলাই, ২০২১, ২:৫৫ অপরাহ্ণ

রাশিয়ার বিরোধিতা সত্ত্বেও কৃষ্ণসাগরে সামরিক উপস্থিতি বজায় রাখার ঘোষণা দিয়েছে মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটো। মধ্য এশিয়া ও দক্ষিণ ককেশাস বিষয়ক ন্যাটোর বিশেষ প্রতিনিধি জেমস অ্যাপাথুরাই এ ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি জর্জিয়ার একটি টিভি চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, ক্রিমিয়া উপকূলে ব্রিটিশ ডেস্ট্রয়ার- ডিফেন্ডারের সঙ্গে রাশিয়া কী আচরণ করেছে তা ন্যাটোকে জানিয়েছে লন্ডন। এখন এই সামরিক জোটের সামনে ওই ঘটনা সম্পর্কে একটি ‘স্পষ্ট চিত্র’ রয়েছে বলেও জানান তিনি।

ন্যাটোর এই বিশেষ প্রতিনিধি বলেন, কৃষ্ণসাগরে নিজের উপস্থিতি বজায় রাখতে ন্যাটো বদ্ধপরিকর এবং এই জোট ক্রিমিয়া উপত্যকাকে ইউক্রেনের অবিচ্ছেদ্য অংশ বলে মনে করে। এটি যে রাশিয়ার নয় সে ব্যাপারে ন্যাটো শক্ত অবস্থান নিয়েছে। রাশিয়াকে বিষয়টি ভালোভাবে উপলব্ধি করতে হবে।

অ্যাপাথুরাই বলেন, নিজের মিত্র ও শরিকদের সমর্থন দেয়ার জন্য কৃষ্ণসাগরে উপস্থিতি বজায় রাখবে ন্যাটো। তিনি বলেন, ‘আমরা রাজনৈতিক পরামর্শ ও তথ্য বিনিময়ের ক্ষেত্রে ইউক্রেন ও জর্জিয়ার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতা বজায় রাখব।’

গত ২৩ জুন ব্রিটিশ ডেস্ট্রয়ার ‘ডিফেন্ডার’ রাশিয়ার পানিসীমা অতিক্রম করে তিন কিলোমিটার ভেতরে ঢুকে ক্রিমিয়া উপকূলের কাছাকাছি পৌঁছে যায়। এ সময় রাশিয়ার কোস্ট গার্ডের দু’টি জাহাজ ও ২০টির বেশি জঙ্গিবিমান ব্রিটিশ ডেস্ট্রয়ারটির ওপর নজর রাখে।

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, তাদের একটি জাহাজ থেকে ডিফেন্ডারকে লক্ষ্য করে সতর্কতামূলক গুলি চালানো হয় এবং একটি জঙ্গিবিমান থেকে ডিফেন্ডারের চলার পথে বোমাবর্ষণ করা হয়। এর ফলে এটি তার গতিপথ পরিবর্তন করে রুশ পানিসীমা ছেড়ে চলে যায়।ন্যাটো দাবি করছে, ক্রিমিয়াকে তারা ইউক্রেনের অংশ মনে করে বলে এই প্রজাতন্ত্রের পানিসীমায় অনুপ্রবেশ করতে তাদের কোনো বাধা নেই।

এর আগে রাশিয়া হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছিল, কৌশলগত কৃষ্ণ সাগরের পানিসীমায় আমেরিকা ও ব্রিটেন যুদ্ধজাহাজ পাঠিয়ে নিজেদের ভাগ্য পরীক্ষা করছে। এভাবে শত্রুতামূলক তৎপরতা অব্যাহত রাখলে সামরিক উপায়সহ যেকোন উপায় অবলম্বন করে রাশিয়া নিজের সীমানা রক্ষা করবে।

ভিয়েনায় জাতিসংঘের দফতরে নিযুক্ত রুশ স্থায়ী প্রতিনিধি মিখাইল উলিয়ানোভ বলেন, কৃষ্ণসাগরে যে কোনো উসকানিমূলক তৎপরতা হবে রাশিয়ার রেডলাইন অতিক্রমের শামিল।

এই ‘ঝুঁকিপূর্ণ পরীক্ষা’র ফলে আঞ্চলিক পরিস্থিতি আরও বেশি উত্তপ্ত হয়ে উঠবে বলেও সতর্ক করে দিয়েছেন তিনি। মঙ্গলবার নিজের অফিসিয়াল টুইটার পেজে দেয়া এক পোস্টে এই হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন উলিয়ানোভ।