১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৫ই জমাদিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

জুড়ীতে ব্যবসায়ীদের উপর হামলা ও ভাঙ্গচুরের প্রতিবাদ


সংবাদদাতা (জুড়ী, মৌলভীবাজার) | PhotoNewsBD

২২ জুন, ২০১৯, ১১:১২ অপরাহ্ণ

মৌলভীবাজারের জুড়ীতে বাস চাপায় ফুটপাতের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ইব্রাহীম আলী নিহত হবার পরদিন পরিবহণ শ্রমিক কর্তৃক জুড়ী শহরের ফুটপাতের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের উপর হামলা ও দোকান ভাঙ্গচুরের প্রতিবাদে এক প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে সচেতন জুড়ী উপজেলাবাসী।

 

২১ জুন রাতে জুড়ী নিউ মার্কেট সম্মুখে প্রতিবাদ সভায় উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন জুড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান এম এ মুঈদ ফারুক, পশ্চিম জুড়ী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ মইন উদ্দিন মইজন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সদস্য এডভোকেট সিরাজুল ইসলাম, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ মৌলভীবাজার জেলা শাখার সহ সভাপতি হুমায়ুন রশিদ রাজি, পূর্বজুড়ী ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সদস্য রফিকুল ইসলাম রেনু, ব্যবসায়ী মামুনুর রশীদ, গণি মিয়া, আবুল্লাহ আল মামুন,ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আরিফ, বকুল প্রমূখ।

 

যারা আইনের তোয়াক্কা না করে ফুটপাতের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের উপর হামলা চালিয়ে তাদের দোকান ভাঙ্গচুর করেছে তাদের দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে আসার আনুরোধ জানান বক্তারা।

 

বক্তব্যের শেষে উপজেলা চেয়ারম্যান এম এ মুঈদ ফারুক সবাইকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে শান্ত থাকার অনুরোধ জানান এবং এ ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে আইনের আওতায় নিয়ে আসার আশ্বাস প্রদান করেন।

 

উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার রাত ৮টায় শহরের লাইটেস ষ্ট্যান্ড এলাকায় বাস চাপায় ফল বিক্রেতা ইব্রাহিম আলী ঘটনাস্থলে মারা যান। এ ঘটনায় বুধবার সকালে জুড়ীর সকল পরিবহন শ্রমিক সংগঠনের পক্ষ থেকে সড়ক ও ফুটপাত থেকে মালামাল সরিয়ে দখলমুক্ত করার জন্য বিকেল চারটা পর্যন্ত সময় দিয়ে মাইকিং করা হয়। নতুবা আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার নেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়।

 

এ ঘোষণার পর শহরের ভবানীগঞ্জ বাজার এলাকার ফুটপাত থেকে মালামাল সরিয়ে নেয় ফল বিক্রেতারা। কিন্তু বিকেল চারটার পর আইনানুগ ব্যবস্থার বদলে আইন হাতে তুলে নেয় পরিবহন শ্রমিকরা। শতাধিক পরিবহন শ্রমিক দলবদ্ধ ভাবে রাস্তায় নেমে ফুটপাতের বিভিন্ন দোকানে হামলা ও ভাঙচুর চালায়।