১৬ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৩রা জমাদিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

ত্রাণের তালিকা প্রস্তুতিতে অনিয়ম-দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছে দুদক


ফটোনিউজবিডি ডেস্ক: | PhotoNewsBD

১৬ এপ্রিল, ২০২০, ৪:০২ অপরাহ্ণ

মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে সৃষ্ট সঙ্কট মোকাবিলায় সরকারের সামাজিক খাদ্য নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় বিতরণকৃত ত্রাণের তালিকা প্রস্তুতিতে অনিয়ম-দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বৃহস্পতিবার(১৬ এপ্রিল) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ এ কথা জানান।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘কমিশন থেকে অন্তত দুইবার সংশ্লিষ্টদের সতর্ক করে বলা হয়েছিল, জাতির এই সঙ্কটময় মুহুর্তে সরকারের সামাজিক নিরাপত্তামূলক কর্মসূচির ত্রাণ বা অন্য কোনো সহায়তা নিয়ে কেউ নয়-ছয় করবেন না। তারপরও কিছু ব্যক্তি তাদের লোভ সংবরণ করতে পারলেন না। কমিশনের নিজস্ব গোয়েন্দাসহ বিভিন্ন উৎস থেকে প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, দেশের কয়েকটি জায়গায় ত্রাণের চাল যথাস্থানে রাখা হয়নি, তালিকা প্রস্তুতিতে অনিয়ম-দুর্নীতি বা ত্রাণ আত্মসাতের ঘটনা ঘটেছে।  তবে একথাও সত্য দেশব্যাপী এ ধরেনের ঘটনা ঘটেনি।  কমিশন চার জায়গায় এ ধরনের ঘটনার সত্যতা পেয়েছে।  আরো অনুন্ধান চলমান আছে।’

ইকবাল মাহমুদ বলেন, ‘ঢাকা, মানিকগঞ্জ, বগুড়ার চারটি ঘটনায় ইতিমধ্যেই মামলা দায়ের করা হয়েছে। ইতোমধ্যেই কমিশন থেকে এসব মামলার তদন্ত সম্পন্ন করে দ্রুত চার্জশিট দাখিলের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। দুদক দ্রুত আসামিদের শাস্তি নিশ্চিত করতে প্রসিকিউটিং সংস্থা হিসেবে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে এ দায়িত্ব পালন করবে।  এ জাতীয় অপরাধ দমনে জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়নে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।’

দুদকের ২২টি সমন্বিত জেলা কার্যালয় (সজেকা) সার্বিকভাবে প্রস্তত রয়েছে উল্লেখ করে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘দুদকের গোয়েন্দারা কাজ করছে বলেই আমরা রিপোর্ট পাচ্ছি। দুদকের ২২টি সজেকা সার্বিকভাবে প্রস্তত রয়েছে। গোয়েন্দা তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।  অতীতেও আমরা বার বার স্মরণ করিয়ে দিয়েছি ত্রাণ কাজে দুর্নীতি করলে কঠিন পরিণতি ভোগ করতে হবে। এ জাতীয় অপরাধীদের শাস্তি নিশ্চিতকল্পে সম্ভাব্য সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করবে দুদক।’