২৭শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৭ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

পাঁচ পেসার দলে, খেলবেন কজন?


ফটোনিউজবিডি ডেস্ক: | PhotoNewsBD

৩১ জানুয়ারি, ২০২১, ৪:৫৩ অপরাহ্ণ

একটা সময় ছিল যখন প্রস্তুতি ম্যাচের পারফরম্যান্সের ওপর নির্ভর করতো অনেক কিছু। প্রস্তুতি ম্যাচে ভালো করলে মূল স্কোয়াডে জায়গা নিশ্চিত। অভিষেকও হয়ে যেতো হরহামেশা।  যদি সেই সময় এখন থাকতো, তাহলে সৈয়দ খালেদ আহমেদ নিশ্চিত ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট স্কোয়াডে থাকতেন। আপাতত খালেদ দুর্ভাগা। ভালো বোলিং করেও প্রাথমিক দল থেকে চূড়ান্ত স্কোয়াডে আসতে পারেননি। তিনি না থাকার পরও ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে টেস্ট স্কোয়াডে রয়েছেন পাঁচ পেসার। তবে যারা টেস্ট স্কোয়াডে আছেন, তাদের মধ্যে কজন খেলতে পারবেন মূল একাদশে?

এ প্রশ্নের উত্তর খোঁজার আগে জানা যাক কেন চট্টগ্রাম ও ঢাকায় টেস্টের জন্য ৫ পেসার স্কোয়াডে রেখেছেন নির্বাচকরা? মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেন, ‘এখানে পাঁচজন পেসার রাখা হয়েছে কারণ অনেকদিন পর আমরা টেস্ট খেলছি। যেকোনও সময় যে কেউ ইনজুরিতে পড়তে পারে। পাঁচ দিনের টেস্ট শেষে আপনি বলতে পারেন না যে তাদের স্ট্যামিনা একই রকম থাকবে। সে হিসেবে তাদের ফিটনেস লেভেলের কথা চিন্তা করে আমরা পাঁচজন পেসার রেখেছি।’

সঙ্গে জাতীয় নির্বাচক যুক্ত করেন, ‘আমরা যখন পুল তৈরি করি, তখন কিন্তু শুধু একটা টেস্ট ম্যাচ মাথায় রেখে টিম করা হয় না। এটা সামনের কথা ভেবে, বিদেশের মাটিতে খেলার বিষয় মাথায় রাখা হয়।’ মোস্তাফিজুর রহমানের সঙ্গে টেস্ট স্কোয়াডে আছেন তাসকিন আহমেদ, ইবাদত হোসেন, আবু জায়েদ রাহী ও হাসান মাহমুদ। হাসান মাহমুদ বাদে চার পেসার পেয়েছেন টেস্ট ক্যাপ। তবে ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছেন সামান্যই।

২০১৯ সালে চট্টগ্রামে আফগানিস্তানকে আতিথেয়তা দিয়েছিল বাংলাদেশ। যেখানে কোনও পেসারকেই রাখেনি স্বাগতিকরা। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ যেবার ওয়েস্ট ইন্ডিজকে আতিথেয়তা দিয়েছিল সেবার চট্টগ্রামে খেলেছিলেন মোস্তাফিজ। ঢাকায় কোনও পেসারই ছিলেন না। চট্টগ্রামে দুই ইনিংস মিলিয়ে মোস্তাফিজ হাত ঘুরিয়েছেন মাত্র ৪ ওভার। সময় পাল্টেছে। আক্রমণে যোগ হয়েছে নতুন অস্ত্র। তবে পাল্টায়নি বাংলাদেশের ভাবনা।

স্কোয়াডে পাঁচ পেসার রাখলেও এবার টেস্টে তাদের সুযোগ সামান্য। কতজন পেসার ম্যাচে দেখা যেতে পারে এমন প্রশ্নের উত্তরে মিনহাজুল আবেদীনের বক্তব্য, ‘আমরা ঘরের মাঠে সবসময় যেভাবে খেলি সেভাবেই খেলবো।’ তবে আশার কথাও শুনিয়েছেন তিনি, ‘২৪ ঘণ্টা আগে টিম ম্যানেজমেন্ট একাদশ চূড়ান্ত করবে। কয়টা স্পিনার, কয়টা পেসার নিয়ে খেলবে এটা তখনই সিদ্ধান্ত হবে। আগাম বলা মুশকিল যে কখন কাকে খেলানো হবে।‘

মিনাহজুল আবেদীনের বার্তা পরিষ্কার, ভবিষ্যৎ ভাবনায় পেসারদের তৈরি করা হচ্ছে। টিম ম্যানেজেমেন্টের সঙ্গে রেখে অভ্যস্ত তাদের করা হচ্ছে। তিনি বলেছেন, ‘যাদের নিয়েছি তাদেরকে আমাদের টেস্ট ক্রিকেটের কথা চিন্তা করে রাখা হয়েছে। যারা খেলবে না তারা যেন একটা প্রক্রিয়ার ভেতরে থাকে। টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে কাজ করে অভ্যস্ত হয়ে যেন আরও উন্নতি করতে পারে এবং খেলার জন্য প্রস্তুত হতে পারে।’