২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ১৯শে শাওয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

পুরোদমে অনুশীলনে সাকিব


ফটোনিউজবিডি ডেস্ক: | PhotoNewsBD

২৮ আগস্ট, ২০২১, ৮:০৮ অপরাহ্ণ

পশ্চিম আকাশের দিকে তখন সূর্য ধীরে ধীরে হেলে পড়ছে। শের-ই বাংলার পূর্ব দিকে ছায়া আর পশ্চিম দিকে রোদের ঝলকানি। এই ঝলকানির মধ্যেই সেন্টার উইকেটে অনুশীলনের শেষ আঁচড় দিচ্ছিলেন সাকিব আল হাসান। খেলছেন একের পর এক শট। দলের অনুশীলনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কখনো ব্যাট, কখনো বল নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন সাকিব। তবে এদিন বোলিংয়ের থেকে ব্যাটিংয়ে বেশি মনোযোগি ছিলেন বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার।

অস্ট্রেলিয়া সিরিজ শেষে উড়ে গিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে থাকা পরিবারের কাছে। প্রায় দুই সপ্তাহের মতো ক্রিকেট থেকে দূরে ছিলেন । কাটিয়েছেন ঘুরে-বেড়িয়ে। আসার পর তিনদিন থাকতে হয়েছে কোয়ারেন্টাইনে। শরীরে মরচে পড়াটা স্বাভাবিক! সতীর্থরা শুক্রবার থেকে অনুশীলন শুরু করলেও সাকিব আজ যোগ দিয়েছেন।

মিরপুর শের-ই-বাংলায় মাঠে নেমে গা গরমের পর সাকিব চলে যান ইনডোরে। পেসার-থ্রোয়ারদের বিপরীতে শুরু করেন ব্যাটিং। বৃষ্টির জন্য মিনিট দশেক বিরতি পেয়েছিলেন। বৃষ্টি থামতেই আবার নেমে পড়েন ব্যাটিংয়ে। স্পিনারদের বিপরীতে এবার নিজেকে ঝালিয়ে নেন। রক্ষণাত্মক ভঙ্গিতে খেলে হাত খোলার চেষ্টা করতে থাকেন। শেষ দিকে সবগুলোই খেলেন জোরালো শট।

ব্যাটিংয়ের পর সাকিব হাত ঘোরান বোলিংয়েও। আধঘণ্টার বেশি সময় ধরে বল করে যান সমানতালে। কোচ রঙ্গনা হেরাথ নজর রেখেছিলেন তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে। দফায় দফায় ব্যাটিং-বোলিং করেও ক্ষান্ত হননি। অনুশীলনের শেষ দিকে ইনডোর থেকে সোজা চলে যান মূল মাঠের সেন্টার উইকেটে। থ্রোয়ারদের বিপরীতে খেলার চেষ্টার করছিলেন ‘লফটেড শট’, মারছিলেন বাউন্ডারি-ওভার বাউন্ডারি।

সর্বশেষ অস্ট্রেলিয়া সিরিজে সাকিব হয়েছিলেন ম্যান অব দ্য সিরিজ। ব্যাট হাতে ১১৪ রানের পাশাপাশি বল হাতে নিয়েছেন ৭ উইকেট। আর অজিদের ৬২ রানে অলআউট করে লজ্জা দেয়ার শেষ ম্যাচে একাই নিয়েছিলেন ৪ উইকেট। নিউ জিল্যান্ড সিরিজেও সাকিবের বাড়তি দায়িত্ব পালন করতে হবে বলার অপেক্ষা রাখে না।

শুধু অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজে নয়; এর আগে জুলাই মাসে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ফরম্যাটে সিরিজ জয়ে রেখেছেন দারুণ ভূমিকা। দ্বিতীয় ওয়ানডে একাই লড়াই করে জিতিয়েছেন। এই ম্যাচে ব্যাট হাতে অপরাজিত ৯৬ রানের সঙ্গে বল হাতে নিয়েছেন ২ উইকেট। প্রথম ওয়ানডেতে উইকেট নিয়েছিলেন ৫টি। সবমিলিয়ে ওয়ানডে সিরিজে তিন ম্যাচে রান করেছেন ১৪৫, উইকেট নিয়েছেন ৮টি।

এ ছাড়া টি-টোয়েন্টি সিরজে বল হাতে ওভার প্রতি ৭ রান দিয়ে সিরিজ জয়ে রেখেছেন দারুণ অবদান। উইকেট নিয়েছেন ৩টি। ব্যাট হাতে দুই টি-টোয়েন্টি ম্যাচে করেছেন ৩৭ রান, এক ম্যাচে নামতে হয়নি। আর একমাত্র টেস্টে ব্যাট হাতে প্রথম ইনিংসে করেছেন ৩ রান; দ্বিতীয় ইনিংসে নামতে হয়নি। বল হাতে নিয়েছেন ৫ উইকেট।

জিম্বাবুয়ে, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজ শেষে এবার সাকিবের সামনে নিউ জিল্যান্ড। তাইতো ছুটি শেষে ফিরেই সাকিব পুরোদমে অনুশীলনে নেমে পড়েন। সেরাটা দেওয়ার জন্য নিজেকে ঝালিয়ে নেওয়া ছাড়া যে উপায় নেই; বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার তা ভালো করেই জানেন। তাইতো কমতি রাখেননি কোনো কিছুতেই।