২৮শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৫শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

ফলোঅনের সংখ্যায় বাংলাদেশ


ফটোনিউজবিডি ডেস্ক: | PhotoNewsBD

৭ ডিসেম্বর, ২০২১, ৬:১৭ অপরাহ্ণ

আলোক স্বল্পতায় আজও প্রায় এক ঘণ্টা কম খেলা হয়েছে। ২৩ ওভার কম খেলেছে বাংলাদেশ। চতুর্থ দিন শেষে ফলোঅনের শঙ্কায় রয়েছে বাংলাদেশ। মুমিনুল হকের দল সাজিদের ঘূর্ণিতে ৭৬ রান না হতেই হারিয়ে ফেলে ৭ উইকেট। সাকিব ২৩ রানে ক্রিজে আছেন। ফলোঅন এড়ানোর জন্য তাকে খেলতে হবে দায়িত্ব নিয়ে। বাংলাদেশকে কমপক্ষে আরও ২৫ রান করতে হবে। সাজিদ খান নেন একাই নেন ৬ উইকেট। এর আগে পাকিস্তান ৩০০ রানে ইনিংস ঘোষণা করে। সাড়ে ৯টায় খেলা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও শুরু হয় ১০টা ৫০ মিনিটে।

বাংলাদেশ: ৭৬/৭ (তাইজুল ০*, সাকিব ২৩*)

পাকিস্তান: প্রথম ইনিংসে ৩০০/৪ (রিজওয়ান ৫৩*, ফাওয়াদ ৫০*)

বোলার বাবরের অভিষেক

ক্যারিয়ারের প্রথমবারের মতো বোলিং করলেন বাবর আজম। বাংলাদেশের ব্যাটিং বিপর্যয়ের সময় ২৬তম ওভারে বল করতে আসেন পাকিস্তানের অধিনায়ক নিজেই। ঘরোয়া ক্রিকেটে বল করার অভিজ্ঞতা থাকলেও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এবারই প্রথম বলে করেন তিনি। দিনের শেষ ওভার দারুণ করেছেন তিনি। অল্পের জন্য পাননি তাইজুলের উইকেট। মাত্র এক রান দেন সফরকারী অধিনায়ক।

ফলোঅনের শঙ্কায় বাংলাদেশ

এবার সাজিদ খানের শিকার মেহেদি হাসান মিরাজ। ৮ বল খেলে কোনো রানই করতে পারেননি এই ব্যাটসম্যান। ফলো-অনের শঙ্কায় বাংলাদেশ। ফলো-অন এড়াতে হলে বাংলাদেশকে ১০১ রান করতে হবে। স্বাগতিকদের রান ৭ উইকেট হারিয়ে ৭৬। আরও ২৫ রান করতে হবে। স্বস্তির বিষয় সাকিব আছেন ক্রিজে।

তৃতীয়বার ধরা পড়লেন শান্ত, সাজিদের প্রথম

১৪তম ওভারের চতুর্থ বলে নোমান আলীর শিকার হতে পারতেন শান্ত। এলবিডব্লিউর আবেদনে সাড়াও দেন আম্পায়ার। তবে রিভিউ নিলে সেটি নো বল হওয়ায় রক্ষা মিলে শান্তের। পরের ওভারে আবারও সাজিদের বলে পায়ে লাগলেও আউট দেননি আম্পায়ার। পাকিস্তান রিভিউ নেয়, তবে অফ স্ট্যাম্পের বাইরে পড়ায় রক্ষা পান শান্ত। তৃতীয় বার আর রক্ষা হয়নি। সাজিদের বলেই এলবি ডব্লিউ হয়ে ফেরেন সাজঘরে। রিভিউ নিয়েছিলেন শান্ত,কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। শান্তকে আউটের মাধ্যমে প্রথমবারের মতো ৫ উইকেট শিকার করেন সাজিদ।

মুশফিকের পর লিটনের উইকেট উপহার

সাজিদ খানকে ডাউন দ্য উইকেটে এসে মারতে গিয়ে তার হাতেই ক্যাচ তুলে দেন লিটন দাস। আরও একটি অপ্রয়োজনীয় শট, আরও একটি উইকেট উপহার। ১২ বলে ৬ রান করেন লিটন। ৫০ রান না হতেই বাংলাদেশ হারিয়ে ফেলে ৫ উইকেট। ক্রিজে আসেন নতুন ব্যাটসম্যান সাকিব আল হাসান।

ভাগ্যবান শান্ত!

১৪তম ওভারের চতুর্থ বলে নোমান আলীর শিকার হতে পারতেন শান্ত। লেগ বিফোরের আবেদনে সাড়াও দেন আম্পায়ার। তবে আপিলে সেটি নো বল হওয়ায় রক্ষা মিলে শান্তের। পরের ওভারে আবারও সাজিদের বলে পায়ে লাগলেও আউট দেননি আম্পায়ার। পাকিস্তান রিভিউ নেয়, তবে অফ স্ট্যাম্পের বাইরে পড়ায় রক্ষা পান শান্ত।

মুশফিকের উইকেট উপহার, ধস নেমেছে ব্যাটিংয়ে

সাজিদ খানকে কাভারে দারুণ একটি চার মেরেছেন। পরের বলেই মুশফিক যা করেছেন তা এক কথায় ‘হরিবল।’ মারতে গিয়ে শর্ট মিড উইকেটে ক্যাচ তুলে দেন ফাওয়াদ আলমের হাতে। ৮ বলে ৫ রান করে ফেরেন সাজঘরে। ৩১ রানে ৪ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। তার আউটে বিপদে পড়ে স্বাগতিক দল।

রানআউট মুমিনুল, আবারও ব্যর্থ টপ অর্ডার

সাদমান ইসলামের আউটের ক্ষত না মুছতেই রানআউট হয়ে ফিরলেন অধিনায়ক মুমিনুল হক। সাজিদ খানকে পয়েন্টে ঠেলে দিয়ে শান্তের ডাকে দ্রুত রান তুলতে গিয়ে ডিগবাজি দেন মুমিনুল। কিন্তু তার আগেই সরাসরি স্ট্যাম্পে আঘাতহানেন হাসান আলী। ১ রান করেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। টানা ব্যর্থ বাংলাদেশের টপ অর্ডার। প্রথম টেস্টের দুই ইনিংসে বাংলাদেশ প্রথম চার ব্যাটসম্যানকে হারায় যথাক্রমে ৪৯ ও ২৩ রানে। আর দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে ২৩ রান না হতেই হারিয়ে ফেলে ৩ উইকেট। মুমিনুলের আউটের পরেই চা বিরতিতে যায় দুই দল।

৩ রানে ফিরলেন সাদমান

সাজিদ খানের বাউন্স করা বলে পয়েন্টে খেলতে গিয়ে হাসান আলীর হাতে ধরা পড়েন সাদমান ইসলাম। এই ওপেনার ২৮ বলে ৩ রান করে ফেরেন সাজঘরে।

অভিষেকে শূন্য রানে ফিরলেন জয়

বাংলাদেশের ৯৯তম ক্রিকেটার হিসেবে অভিষেক হয়েছিল মাহমুদুল হাসান জয়ের। কিন্তু রাঙাতে পারলেন না। সাজিদ খানের বলে স্লিপে বাবরের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন সাজঘরে। ৭ বল খেলে রানের খাতা খুলতে পারেননি এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। পাকিস্তান প্রথম ওভারের পরেই স্পিন নিয়ে আসে। নোমান আলী-সাজিদ খান বোলিং করে যাচ্ছেন দুই প্রান্ত থেকে। আফ্রিদি প্রথম স্পেলে ১ ওভারে ১ রান দিয়ে কোনো উইকেট পাননি।

৩০০ রানে পাকিস্তানের ইনিংস ঘোষণা

মোহাম্মদ রিজওয়ানের পর ফাওয়াদ আলমের ফিফটিতে ৩০০ পূর্ণ করে পাকিস্তান। এরপরেই ইনিংস ঘোষণা করে সফরকারী দল। প্রথম দিন টস জিতে ব্যাটিং করতে নামে পাকিস্তান। এদিন ৫৭ ওভারের বেশি খেলা হয়নি। ২ উইকেট হারিয়ে ১৬১ রান করেছিল সফরকারীরা। দ্বিতীয় মাত্র ৬ ওভার ২ বল খেলা হয়। কোনো উইকেট না হারিয়ে পাকিস্তান আরও ২৭ রান যোগ করে। তৃতীয় দিন একটি বলও মাঠে গড়ায়নি। চতুর্থ দিন সাড়ে ৯টায় খেলা শুরুর কথা থাকলেও শুরু হয় সাড়ে ১০টায়। পাকিস্তান দেড় সেশন ব্যাটিং করে ২ উইকেট হারিয়ে ১১২ রান যোগ করে। সর্বোচ্চ ৭৬ রান করেন বাবর। রিজওয়ান ৫৩ ও ফাওয়াদ ৫০ রানে অপরাজিত আছেন। দলীয় ৩০০ হওয়ার পরেই করে ইনিংস ঘোষণা। ৯৮.৩ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ৩০০ রান করে। ২ উইকেট নেন তাইজুল ইসলাম। ১টি করে উইকেট নেন খালেদ-তাইজুল।

রিজওয়ানের হাফ সেঞ্চুরি

৯৪তম ওভারে তাইজুল ইসলামের চতুর্থ বলে ছক্কা মারেন মোহাম্মদ রিজওয়ান। পৌঁছে যান ৪৯ রানে। পরের বলে লং অফে শট খেলে সিঙ্গেল নিয়ে ফিফটি। ৮৬ বলে চারটি চার ও এক ছয়ে হাফ সেঞ্চুরি করেন তিনি। তার সঙ্গে অন্য প্রান্তে আছেন ফাওয়াদ আলম।

ফাওয়াদ-রিজওয়ানে এগোচ্ছে পাকিস্তান

চতুর্থ দিনের শুরুতে পরপর দুই ব্যাটসম্যানকে ফিরিয়ে দারুণ শুরু করেছিল বাংলাদেশ। চার রানের ব্যবধানে ফেরেন আগের দিনের অপরাজিত যুগল বাবর আজম ও আজহার আলী। পঞ্চম উইকেটের জুটিতে প্রতিরোধ গড়েন মোহাম্মদ রিজওয়ান ও ফাওয়াদ আলম। প্রথম সেশনের পর দ্বিতীয় সেশনও ব্যাট করছেন তারা। ইতিমধ্যে ১০১ বলে ৫০ রানের জুটি গড়েছেন রিজওয়ান-ফাওয়াদ। তাইজুল দ্বিতীয় স্পেলে ৪ ওভার ১ মেডেন ৯ রান। কোনো উইকেট পাননি। বিরতির পর তার পরিবর্তে বোলিংয়ে আসেন সাকিব আল হাসান। আরেক প্রান্তে এবাদত বোলিং করছেন।

মধ্যাহ্ন বিরতির আগে ফাওয়াদ-রিজওয়ানের প্রতিরোধ

ফাওয়াদ আলম ও মোহাম্মদ রিজওয়ানের প্রতিরোধে ঘুরে দাঁড়িয়েছে পাকিস্তান। বাবর ফেরার পর দুজনের জুটি থেকে আসে ৪৫ রান। ফাওয়াদ ১৯ ও রিজওয়ান ২৬ রানে অপরাজিত আছেন। একটি করে উইকেট নিয়েছেন এবাদত ও খালেদ। খালেদের তৃতীয় স্পেল শেষে এখন বোলিং করছেন এবাদত। তৃতীয় স্পেলে খালেদ দুই ওভারে ১টি মেডেন দিয়ে ২ রান দিয়েছেন। কোনো উইকেট পাননি। আরেক প্রান্ত তাইজুল বোলিং করে যাচ্ছেন। এখন চলছে মধ্যাহ্ন বিরতি।

রিজওয়ানের দুই জীবন

৭৯ তম ওভারে তাইজুলের বলে এলবিডব্লিউ হন মোহাম্মদ রিজওয়ান। জোরালো আবেদনে আম্পায়ার সাড়া দিলে রিভিউ নেন এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। ব্যক্তিগত ১২ রানে বেঁচে যান তিনি। এর আগে ০ রানেও রিভিউ নিয়ে জীবন পান তিনি।

ফাওয়াদের নিশ্চিত আউটের সুযোগ হারালো বাংলাদেশ

৭৩তম ওভারে এবাদতের শেষ বলটি ফাওয়াদ আলমের ব্যাট ছুঁয়ে যায় লিটনের গ্লাভসে। তবে বুঝতে পারেননি বাংলাদেশের ফিল্ডাররা। ১২ রানে অপরাজিত এই ব্যাটসম্যানকে ফেরানোর সুযোগ পেয়েও হাতছাড়া হয় বাংলাদেশের। এর আগে ৭১তম ওভারের শেষ বলে রিজওয়ানের ব্যাটে লাগা বলে লেগ বিফোরের আবেদন করে বাংলাদেশ। তাতে সাড়াও দেন আম্পায়ার সৈকত। তবে আত্মবিশ্বাসী রিজওয়ান রিভিউ নিয়ে রক্ষা পান। দ্বিতীয় স্পেলে খালেদ ৯ ওভার বোলিং করে তিন মেডেনে ১৯ রান দিয়ে ১ উইকেট নেন। তার পরিবর্তে বোলিংয়ে আসেন স্পিনার তাইজুল ইসলাম। আর এবাদত তার তৃতীয় স্পেলে ১২ ওভারে ৪৮ রান দিয়ে নেন ১ উইকেট। এবাদতের পরিবর্তে তৃতীয় স্পেল শুরু করেন খালেদ।

বাবরকে ফিরিয়ে উইকেটের খাতা খুললেন খালেদ

বাবর আজমকে এলবিডব্লিউ করে টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম উইকেট পেলেন খালেদ আহমেদ। বাবর ১২৬ বলে ৭৬ রানের ইনিংস খেলেন। রিবিউ নিয়েছিলেন পাকিস্তান অধিনায়ক, কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। ২০১৮ সালে অভিষেক হওয়ার পর জাতীয় দলে অনিয়মিত পেসার খালেদ নিজের তৃতীয় টেস্টে এসে প্রথম উইকেটের দেখা পান। সেটাও আবার টেস্ট ক্রিকেটে বিশ্বের অন্যতম ব্যাটসম্যানকে ফিরিয়ে নিজের প্রথম উইকেট রাঙান তিনি।

শুরুতেই আজহারকে ফেরালেন এবাদত

দিনের শুরুতেই আজহার আলীকে সাজঘরে পাঠিয়েছেন পেসার এবাদত হোসেন। এবাদতের শর্ট বলে পুল করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু ব্যাটে-বলে ঠিক মতো সংযোগ হয়নি। লিটন দাসের সহজ ক্যাচে ৫৬ রানে আউট হন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক। আজহারের আউটে ভেঙে যায় ১২৩ রানের জুটি। ক্রিজে নতুন ব্যাটসম্যান ফাওয়াদ আলম এসেছেন।

ফ্লাড লাইটের আলোতে খেলা শুরু

১ ঘণ্টা ২০ মিনিট দেরিতে খেলা শুরু হয়েছে। মিরপুরের আকাশ এখনো মেঘলা। দেখা নেই সূর্যের। ফ্লাড লাইটের আলোতে চলছে খেলা। দিনের প্রথম সেশন শুরু হবে সকাল ১০টা ৫০মিনিটে এবং শেষ হবে দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে। আধাঘণ্টার মধ্যহ্নভোজের বিরতির পর দ্বিতীয় সেশন শুরু হবে দুপুর ১টা ১০মিনিটে এবং তা শেষ হবে বিকেল ৩টা ১০ মিনিটে। ২০মিনিটের চা বিরতি শেষে দিনের তৃতীয় ও শেষ সেশন শুরু হবে সাড়ে তিনটায় এবং শেষ হবে সাড়ে ৫টায়।

১০টা ৫০ মিনিটে শুরু, খেলা ৮৬ ওভারে

চতুর্থ দিন ১০টা ৫০ মিনিটে খেলা শুরু হবে। ৯৮ ওভার হওয়ার কথা থাকলেও হবে ৮৬ ওভার। ম্যাচ শুরু হওয়ার কথা ছিল সাড়ে ৯টায়,কিন্তু ভেজা আউটফিল্ডের কারণে তা সম্ভব হয়নি। পরে ১০টা ১০ মিনিটে মাঠ পরিদর্শন করে খেলা শুরুর সময় ঘোষণা করেন ম্যাচ অফিসিয়ালরা।

চতুর্থ দিনও খেলা শুরু হতে দেরি

বৃষ্টির বাধায় ঢাকা টেস্টের তৃতীয় দিন শেষে মাত্র ৬৩.২ ওভার খেলা হয়েছে। চতুর্থ দিন মঙ্গলবারও (৭ ডিসেম্বর) নির্ধারিত সময়ে শুরু হচ্ছে না খেলা। সকাল সাড়ে ৯টায় খেলা শুরু হওয়ার কথা ছিল। এই মুহূর্তে বৃষ্টি না থাকলেও ভেজা আউটফিল্ডের কারণের খেলা শুরু হতে বিলম্ব হচ্ছে। কাভার সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে ধীরে ধীরে। মাঠ উপযোগী হলেই শুরু হবে খেলা। দুই দল মাঠেই অবস্থান করছে। সকাল ১০টা ১০ মিনিটে মাঠ পরিদর্শন করবেন অফিসিয়ালরা। তৃতীয় দিন শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ২ উইকেট হারিয়ে ১৮৮। বাবর ৭১ ও আজহার ৫২ রানে অপরাজিত আছেন।

বৃষ্টির জলে ভেসে গেলো তৃতীয় দিন

বৃষ্টির জলে ভেসে গেলো তৃতীয় দিন। একটি বলও মাঠে গড়ায়নি। দুপুর পর্যন্ত অপেক্ষা করার পর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসে তৃতীয় দিনের খেলা পরিত্যক্ত হওয়ার বিষয়ে। দুই দলের কোনো খেলোয়াড় মাঠে আসেননি। তারাও অপেক্ষা করছিলেন বৃষ্টি বন্ধের। এর আগে প্রথম দিন ৫৭ ওভার, দ্বিতীয় দিন ৬.২ ওভার ও তৃতীয় দিন ১টি বলও খেলা হয়নি। তিন দিন মিলিয়ে খেলা হয়েছে মাত্র ৬৩.২ ওভার।