২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২০শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

বিপিএলে ১কোটি পাবে চ্যাম্পিয়ন দল


ফটোনিউজবিডি ডেস্ক: | PhotoNewsBD

২২ ডিসেম্বর, ২০২১, ৬:৪১ অপরাহ্ণ

অবশেষে চূড়ান্ত হলো বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) সময়-সূচি। আগামী ২০ জানুয়ারি শুরু হবে দেশের ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক ক্রিকেট লিগের এই আসর। ফাইনাল হবে ২০ ফেব্রুয়ারি।

বিপিএল গভর্নিং কমিটির সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক সংবাদ সম্মেলনে এসব বিষয় নিশ্চিত করেছেন। বুধবার (২২ ডিসেম্বর) বিকেলে শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে মল্লিক বলেন, ‘বিপিএল নিয়ে এবার একটু অনিশ্চয়তা ছিল। করোনা পরিস্থিতির কারণে নিউজিল্যান্ডে দল খেলতে পারবে কি না, করোনা ফলাফল কী হবে এসব বিবেচনা করতে হয়েছে। আমাদের সব প্রস্তুতিই ছিল। এখন পর্যন্ত ৬টি দল প্রায় চূড়ান্ত। এই দলগুলোকে আমরা কিছু শর্ত দিয়েছি, যেমন- টাকা জমা দেওয়া, অংশগ্রহণ ফি জমা দেওয়া। আজ-কালকের মধ্যে যারা দিয়ে দিবে তাদের আমরা গ্রহণ করে নিব। না হলে আমাদের আরো ২-৩টি আগ্রহী ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে কথা বলা আছে, মানে ব্যাকআপ আছে আমাদের।‘

ছয়টি দলের কথাও জানিয়েছেন বিপিএলের এই কর্মকর্তা, ‘এই ছয়টির মধ্যে ঢাকা, সিলেট, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও কুমিল্লা আছে। এই ছয়টি দলকে নিয়ে বিপিএল আয়োজনের ব্যাপারে ঠিক করেছি।‘

গতবারের বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত বিশেষ বিপিএলে কোনো ধরনের প্রাইজমানি ছিল না। তবে এবার থাকছে। চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ১ কোটি টাকা আর রানার্স আপ দল পাবে ৫০ লাখ টাকা। এ ছাড়া দেশি-বিদেশি ক্রিকেটারদের গ্রেড অনুযায়ী টাকার অঙ্কও ঠিক করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

মল্লিক বলেন, ‘প্রাইজমানি নিয়েও কথা হয়েছে। চ্যাম্পিয়ন দলের জন্য ১ কোটি টাকা ও রানার্স আপ দলের জন্য ৫০ লাখ টাকা।‘

প্লেয়ার্স ড্রাফট হওয়ার কথা রয়েছে ২৭ ডিসেম্বর। তবে কোনো কারণে যদি ওই তারিখে সম্ভব না হয় তাহলে এটি হবে ৩ থেকে ৫ জানুয়ারির মধ্যে। ড্রাফটের বাইরে একজন স্থানীয় খেলোয়াড় ও ৩ জন বিদেশি খেলোয়াড় নিতে পারবে যে কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজি।

ড্রাফট নিয়ে মল্লিক বলেন, ‘ড্রাফটের বাইরে চুক্তি করলে তো যে কেউ যে কোনো দামে খেলতে পারে। স্থানীয় ক্রিকেটারদের জন্য ৭০, ৩৫, ২৫, ১৮, ১২ লাখ টাকা এরকম করে আছে। বিদেশিরা ৭০ হাজার ডলার থেকে শুরু। তারপর ৫০ হাজার, ৩০ হাজার, ২৫ হাজার, ২০ হাজার ডলারের মতো।‘

জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা নিউ জিল্যান্ড থেকে ফিরে পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিয়ে যেন বিপিএলে অংশ নিতে পারে সেই সুযোগ রাখছে বিপিএল কর্তৃপক্ষ। তারা যদি কয়েক ম্যাচ কমও খেলেন তাহলে যাতে পুরো টাকাটা পান সেভাবে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর সঙ্গে আলোচনা করবে বিপিএল কর্তৃপক্ষ।

মল্লিক বলেন, ‘নিউজিল্যান্ড থেকে ১৪ বা ১৫ জানুয়ারি দল আসার কথা। ৪-৫ দিন খেলোয়াড়দের বিশ্রাম দিয়ে ২০ জানুয়ারি থেকে শুরু করার ইচ্ছা, ২০ ফেব্রুয়ারির মধ্যে শেষ করে ফেলব। ৩-৪ দিন আগে বোর্ড সভাপতি আমাকে ও সোহেল ভাইকে ডেকে বলেছেন জাতীয় দলের খেলোয়াড়রা বিশ্রাম চাইলে ২-৪ ম্যাচে বিশ্রাম দেওয়া হবে। এটা নিয়ে কোনো অসুবিধা নেই। পারিশ্রমিকের ক্ষেত্রে সমস্যা নেই। এটা ফ্র্যাঞ্চাইজিদের সাথে কথা বলে আমরা ঠিক করে নিব।‘

মাঠের সংখ্যা কমতে পারে এমন আভাসও ছিল। তবে মল্লিক জানিয়েছেন তিনটি মাঠেই হবে খেলা। প্রতিদিন দুটি করে খেলা হবে। প্রথম ম্যাচ দুপুর একটা থেকে দুইটায় শুরু হতে পারে আর দ্বিতীয় ম্যাচ দুই থেকে আড়াই ঘণ্টার বিরতি দিয়ে শুরু হবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হওয়ার কথা থাকলেও মল্লিক জানিয়েছেন না হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।