২৮শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৫শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

রাজনগরে আহমদিয়া মসজিদে বাৎসরিক জলসায় হামলা, নারী পুরুষ সহ আহত অনেক


রাজনগর প্রতিনিধি: | PhotoNewsBD

১৬ জানুয়ারি, ২০১৮, ৮:০৮ অপরাহ্ণ

মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার পাঁচগাঁও ইউনিয়নের বাগেশ্বর গ্রামে আহমদিয়া মসজিদে বাৎসরিক জলসাতে উলামালীগের সভাপতি মৌলানা আব্দুল মন্নান এবং মাওলানা কাওছার আহমদ এর নেতৃত্বে ১৫ জানুয়ারী আগুণ দেয় ছুন্নিদের একটি দল। এই ঘটনায় মসজিদে ওয়াজ শুনতে আসা অনেক নারী ও পুরুষ পুড়ে গুরুত্বর আহত হন। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে পার্শ্ববর্তী হাসপাতালে ভর্তি করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নারী ও পুরুষের অংশ গ্রহণে বাগেশ্বর আহমদিয়া মসজিদে ২য় বারের মতো জলসার আয়োজন করা হয়েছিল। কিন্তু ছুন্নি মুসল্লিরা নারী পুরুষের যৌথ জলসা মেনে নিতে পারেনি। নারী পুরুষের সহঅবস্থানকে ধর্মে হারাম করা হয়েছে ফতুয়া দেয়। ১৫ জানুয়ারী জলসা চলাকালিন সময়ে একদল আলীম ও মাদ্রাসা ছাত্রদের নেতৃত্বে জলসায় অতর্কিত ও পূর্বপরিকল্পিত হামলা করা হয়। তখন শ্রুতারা যে যার মতো করে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু কয়েকজন মুসল্লি হামলাকারীদের প্রতিহত করার চেষ্টা করেন। এক পর্যায়ে হামলাকারীদের সাথে মুসল্লিদের সংঘর্ষ বেঁধে যায়। হামলাকারীরা সংখ্যায় বেশি থাকায় এবং তাদের হাতে দেশীয় অস্ত্র থাকায় আয়োজকদের ব্যাপক মারধর করে। এক পর্যায়ে উলামালীগ নেতারা ক্ষিপ্ত হয়ে মসজিদে আগুণ দেয়। আহমদীয়া মুসল্লিরা মসজিদ রক্ষা করতে চাইলেও শেষ রক্ষা হয়নি।

খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালিয়ে নাশকতা ও ধর্ম অবমাননার দায়ে ওই দিন রাতে আহমদিয়া ধর্মের অনুসারী (১) মোঃজালাল মিয়া (২) মোঃ ইনাম মিয়া (৩) মোঃ জাহাঙ্গীর মিয়া (৪) মোঃ চুনু মিয়া (৫) মোঃ মোস্তাকিন মিয়া (৬) মুহিবুর রহমান আলমগীর (৭) মোঃ মফিজ মিয়া (৮) মোঃ সবুর মিয়া’কে আটক করে।

এবিষয়ে বাগেশ্বর আহমদিয়া জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি আকবর মিয়া বলেন, “কোনো কারণ ছাড়াই আমাদের জলসায় হামলা করা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা নারীদেরকে শ্লীলতাহানি করা হয়েছে। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের জলসায় আশা শ্রুতাদের উপর অতর্কিত হামলা করা হয়। এতে আমাদের ধর্মীয় অনুসারী ২০ থেকে ২৫ জন নারী এবং পুরুষ আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এদের মধ্যে ৪ জনের অবস্থা আশংকাজনক। আমরা সরকারের কাছে এর সুষ্ট বিচার দাবি করছি।
রাজনগর থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বণিক বলেন, উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে অধ্য ১৫/০১/২০১৮ ইং সন্ধ্যা ৬ ঘটিকায় উলামালীগের সভাপতি মৌলানা আব্দুল মন্নান নাশকতা এবং ধর্ম অবমাননার দায়ে একটি মামলা দায়ের করেন। এতে ২০ জনের নাম উল্লেখ এবং ১০ জন অজ্ঞাতনামা রেখে এই মামলা করেন। এই প্রেক্ষিতে আমরা ৮ জনকে গ্রেফতার করেছি এবং বাকিদেরকে গ্রেফতারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আমরা তদন্ত করে অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিব।