১৯শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৫ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৬ই জমাদিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

রোববার নৌপথে যাত্রীবাহী নৌযান চলবে


ফটোনিউজবিডি ডেস্ক: | PhotoNewsBD

৩০ মে, ২০২০, ১২:৩৪ অপরাহ্ণ

স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে রোববার (৩১ মে) থেকে অভ‍্যন্তরীণ নৌপথে যাত্রীবাহী নৌযান চলবে। প্রথমে রোটেশন পদ্ধতিতে (নির্দিষ্টি কয়েকটি) লঞ্চ চলবে। যাত্রী চাপ থাকলে নৌযান বাড়ানো হবে বলে জানিয়েছেন লঞ্চ মালিকরা।

শনিবার (৩০ মে) এ বিষয় নিয়ে লঞ্চ মালিক সমিতির বৈঠক হবে।  সেখানে স্বাস্থ্যবিধি মানাসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হবে বলে জানানো হয়েছে।

নৌ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, সদরঘাট টার্মিনাল থেকে ৪৫টি রুটে প্রায় দেড় শতাধিক লঞ্চ চলাচল করে।  রোববার থেকে রোটেশন পদ্ধতিতে ৮০টি লঞ্চ চলবে।  বর্তমানে ঢাকা-বরিশাল রুটে চলাচলের অনুমতি পাওয়া লঞ্চ ২৩টি।  নিয়মানুযায়ী প্রতিদিন উভয় প্রান্ত থেকে কমপক্ষে ১১টি করে লঞ্চ  চলবে।

করোনাভাইরাসের পরিপ্রেক্ষিতে স্যানিটাইজারসহ প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য সুরক্ষা উপকরণ রাখসহ নৌপথে যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ১৪টি নির্দেশনা মানা হবে।  লঞ্চ চলবে রোটেশন না অন্য কোন পদ্ধতিতে চলবে এবং লঞ্চগুলো আগের সময় অনুযায়ী ছেড়ে যাবে না নতুন সময়ে ছাড়বে তাও শনিবারের বৈঠকে নির্ধারণ করা হবে।  তবে আগের সিডিউল অনুযায়ী লঞ্চ ছাড়া হবে বলে জানান একজন লঞ্চ মালিক।

নৌ মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, দেশের লঞ্চ টার্মিনালে যাত্রীদের জন্য জীবাণুমুক্ত হওয়ার টানেল স্থাপন ও যাত্রী পরিবহনের আগে থার্মোমিটারের মাধ‍্যমে তাপমাত্রা পরিমাপের ব্যবস্থা থাকবে। এছাড়া যাত্রীদের জন্য স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও হ্যান্ড স্যানিটাইজারেরও ব্যবস্থা থাকবে।  পাশাপাশি  লঞ্চ মালিকরা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ১৪ দফা নির্দেশনা তারা মেনে চলবে।  স্বাস্থ্যবিধি না মেনে লঞ্চ চালালে সরকারের পক্ষ থেকে যেকোনও সময় চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে।

বিআইডব্লিউটির এক কর্মকর্তা বলেন, মানুষের জীবিকার কথা ভেবে সীমিত পরিসরে লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। লঞ্চ জীবাণুমুক্ত করা, যাত্রীকে জীবাণুমুক্ত করে লঞ্চে তোলা, স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় যাত্রী কম ওঠান এসব লঞ্চ মালিকদের মেনে লঞ্চ চালাতে হবে।  আশাকরি সবকিছু তারা মেনে চলবে।

বাংলাদশ লঞ্চ মালিক সমিতির একজন সদস্য বলেন, দেশের ৪৫ রুটে ঈদ ছাড়া অধিকাংশ সময় রোটেশন পদ্ধতি নৌযান চলে। আগামী রোববার থেকে সেভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে লঞ্চ চলাচল শুরু হবে।

বাংলাদেশ লঞ্চ মালিক সমিতির সভাপতি মাহবুব উদ্দিন আহমেদ বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে লঞ্চ চলাচল শুরু হবে।  ভাড়া বৃদ্ধি নিয়ে কারিগরি কমিটি ১০ দিনের মধ্যে বৈঠক করবে।  ওই বৈঠকে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।  এর আগে বিদ্যমান ভাড়ায় যাত্রী নেওয়া হবে।

বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক বলেন, করোনাভাইরাসের পরিপ্রেক্ষিতে নৌপথে যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে ১৪টি নির্দেশনা দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। বিআইডব্লিউটিএ এ নির্দেশনা মেনে লঞ্চে যাত্রী পরিবহনের নির্দেশ দিয়েছে।  সার্ভে সনদ অনুযায়ী যাত্রী নিতে হবে।  কোনো লঞ্চ অতিরিক্ত যাত্রী বহন করছে কিনা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখছে কিনা- তা মনিটরিং করা হবে।

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, যাত্রী নিয়ে সীমিত পরিসরে গণপরিবহন চলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।  আগামী রোববার থেকে লঞ্চ চলবে।  স্বাস্থ্যবিধি মানাসহ সবকিছু মনিটরিং করা হবে।